ঢাকা সোমবার | ১৩ই সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২৯শে ভাদ্র, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সিনিয়র রিপোর্টার
৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ | ১৯:১৫

বিদেশি গণমাধ্যমগুলো খালেদার রায় নিয়ে যেভাবে লিখছে

tesst

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেয়ার খবরটি গুরুত্বের সঙ্গে স্থান পেয়েছে বিদেশি গণমাধ্যমগুলোতে।

মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক প্রভাবশালী আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম আলজাজিরার শিরোনাম করা হয়, “দুর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের কারাদণ্ড”।প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার একটি আদালত সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে দুর্নীতির এক মামলায় ৫ বছরের কারাদন্ড দিয়েছে।

দেশের একটি জাতীয় ইংরেজি দৈনিকের বরাত দিয়ে আলজাজিরার প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, বিশেষ আদালত- ৫ এর
বিচারক মোহাম্মদ আখতারুজ্জামান বৃহস্পতিবার দুইবারের প্রধানমন্ত্রীকে এই সশ্রম কারাদণ্ড দেন। প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের প্রধান বিরোধী রাজনৈতিক শক্তি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল- বিএনপির চেয়ারপারসন ছাড়াও আরো ৫ জনকে এই মামলায় শাস্তি দেয়া হয়েছে। তবে, মামলার অন্য আসামি খালেদা জিয়ার বড় ছেলে ও বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ অন্য পাঁচ আসামিকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, চলতি বছরের শেষের দিকে দেশটিতে যখন জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে সেই মুহুর্তে এই মামলাকে রাজনৈতিকভাবে খুবই তাৎপর্যপূর্ণ হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

বিবিসি ওয়ার্ল্ড সার্ভিসের শিরোনাম করা হয় “বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত”। প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের বিরোধী নেতা খালেদা জিয়াকে দুর্নীতির দায়ে ৫ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

এতে বলা হয়, “তার হাজার হাজার সমর্থকদের টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ করে ছত্রভঙ্গ করে দেয়ার পর ঢাকার একটি আদালত এই রায় ঘোষণা করে।” প্রতিবেদনে আরো বলা হয়, ৭২ বছরের বেগম জিয়া শিশুদের চ্যারিটেবল ফান্ডের অনুদানের টাকা তছরুপ করেছেন বলে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা তিনি অস্বীকার করেছেন।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, এই রায়ের যে অর্থ দাঁড়াতে পারে তা হলো – চলতি বছরের সংসদীয় নির্বাচনে বেগম জিয়াকে অংশগ্রহণ করতে দেয়া হবে না। আর খালেদা জিয়া তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রনোদিত বলে আখ্যায়িত করেছেন বলেও বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

বেগম জিয়াকে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কয়েক দশকের প্রধান রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে উল্লেখ করে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয় মিস জিয়ার বিরুদ্ধে বিচারাধীন ডজনখানেক মামলার মধ্যে এটি একটি। বিচারককে উদ্ধৃতি দিয়ে বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, বেগম জিয়ার সামাজিক অবস্থান ও তার বয়স বিবেচনা করে তাকে ৫ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হলো।

এছাড়া ভারতের প্রভাবশালী গণমাধ্যম এনডিটিভির শিরোনামে বলা হয়, “বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে দুর্নীতির দায়ে ৫ বছরের কারাদণ্ড”। প্রতিবেদনে রায়কে ঘিরে পুলিশ ও বিএনপি সমর্থকদের মধ্য সংগঠিত সংঘর্ষের বিষয়টিও উঠে আসে।

পাকিস্তানের প্রভাবশালী ইংরেজি দৈনিক “ডি ডেইলি পাকিস্তান”-এর শিরোনামে বলা হয়, “দুর্নীতির মামলায় বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের কারাদণ্ড”। প্রতিবেদনে রায়কে ঘিরে রাজধানী ঢাকায় কোনো ধরনের রাজনৈতিক সভা-সমাবেশের ওপর আগে থেকেই যে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছিল সে বিষয়টিরও উল্লেখ করা হয়।

এছাড়া আমেরিকাভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম রয়টার্সসহ প্রায় সব প্রভাবশালী আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমেই খালেদা জিয়ার মামলার রায়ের খবরটি গুরুত্বের সঙ্গে স্থান পায়।

আগামীনিউজ২৪.কম/কেএম

বিষয়সমূহঃTags: , , , ,